Elon Musk - এক বিলিনইয়র এর গল্প


Elon Musk - এক বিলিনইয়র এর গল্প

সাল ১৯৮৪। সাউথ আফ্রিকার ছোট একটি শহরে ১২ বছর বয়সী ছেলের গল্প এটি ।
ছেলেটি সেসমইয় একটি ভিডিও গেইম তৈরি করে চারিদিকে আলোড়ন সৃষ্টি করে দেয় এবং পরবর্তিতে ব্লাস্টার নামে তার তৈরিকৃত ভিডিও গেইমটি কোণো এক ম্যাগাজিন ৫০০ ডলার মূল্যে কিনে নেয়। ছোট সেই সেলেটি বর্তমান বিশ্বের অন্যতম একজন স্বপ্নদ্রষ্টা ইলন মাস্ক |
BigganBhoot_Elon_Musk_Bangla_Elon Musk - এক_বিলিনইয়র_এর_গল্প
Source: Steve Jurvetson


বিশ্বখ্যাত সেই ছোট ছেলেটির জন্ম হয়েছিল ১৯৭১ সালের ২৮ই জুন, সাউথ আফ্রিকার প্রিটোরিয়ার উচ্চ-মধ্যবিত্ত একটি পরিবারে। 
মা Maye Musk ছিলেন একজন সুপরিচিত মডেল এবং ডাইটেশিয়ান এবং বাবা Errol Musk ছিলেন একজন ইলেকট্রো-ম্যাকানিকাল ইঞ্জিনিয়ার ও একজন পাইলট ।
ইলন মাস্কের ছেলেবেলা কেটেছে বই পড়ে। ছোটবেলা থেকেই তাঁর জানার আগ্রহ ছিল প্রচুর । তিনি দিনের ১০ ঘন্টা সমইয় কাটাঁতেন পছন্দের সব বই পড়ে। পদার্থ এবং অর্থনীতিক বই বেশি পড়তেন তিনি। এক ইন্টারভিউতে ইলন মাস্ক বলেন, "একটা সময় আমি অন্ধকারকে ভয় পেতাম কিন্তু বই  পড়ার মাধ্যমে আমি জেনেছি যে অন্ধকার হচ্ছে শুধু ফোটনের অনুপস্থিতি মাত্র । তাই অন্ধকারকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই।"
আজ ইলন মাস্ক একজন সুপ্রতিষ্ঠিত উদ্যোক্তা এবং বিনিয়োগকারী ব্যাবসায়ী। আবার একধারে তিনি একজন সফল উদ্ভাবক এবং স্বপ্নদ্রষ্টা।
সম্পূর্ন মানবিক একটি পৃথিবী তৈরি করার লক্ষ্যে এখনো কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। 

এক ইন্টারভিউতে স্বপ্নদ্রষ্টা এই মানুষটি বলেন, "আমি যেসব জিনিসগুলো নিয়ে কাজ করি তার পেছনে রয়েছে এক স্বপ্ন । আমার স্বপ্ন , পরিবর্তিত একটি নতুন পৃথিবী যা হবে আরো মানবিক।
সেই লক্ষ্যেই তিনি তার কম্পানি সোলার সিটি, স্পেস এক্স এবং টেসলা প্রতিষ্ঠীত করেছেন। তাঁর লক্ষ্য বৈশ্বিক উষ্ণতা কমিয়ে এনে যান্ত্রিক শক্তি উৎপাদন ও ব্যাবহার করা। ইলন মাস্কের আরেকটি স্বপ্ন হলো মঙ্গল গ্রহে মানব বসতি গড়ে তোলা যা সারা বিশ্বে  Making Life Multiplanetory নামে পরিচিত।
BigganBhoot_Elon_Musk_Bangla_Elon Musk - এক_বিলিনইয়র_এর_গল্প
                Credit: Steve Jurvetson

Hyperloop

"হাইপারলুপ" হলো একটি টিউব কেন্দ্রিক পরিবহন ব্যাবস্থা। এই প্রযুক্তি নিয়ে ভাবছেন ইলন মাস্ক। একটি প্রেসকনফারেন্সে তিনি এই প্রযুক্তির একটি উদাহরন দিয়ে বলেন, হাইপার লুপের মাধ্যমে নিউইয়ার্ক থেকে লস এঞ্জেলেস যেতে সময় প্রয়োজন হবে মাত্র ৪৫ মিনিট । তার ব্যাখ্যা অনুযায়ী এটি হবে টিউব কেন্দিক যোগাযোগ ব্যাবস্থা। টিউবটি একটি দেশের বিভিন্ন শহরে কিংবা ভিন্ন দেশে যুক্ত থাকবে। টিউবের মদ্ধ্যে থাকবে ক্যাপসুল আকৃতির যান, এই ক্যাপসুল আকৃতির যানে চড়ে ঘন্টায় ৬০০ মেইল বেগে ভ্রমণ করা যাবে। যেহেতু টিউবটি থাকবে সম্পূর্ন বায়ু মুক্ত তাই এতে ঘর্ষণ থাকবে না বললেই চলে।


ইলন মাস্ক একই সাথে স্বপ্ন দেখে চলছেন এবং তা বাস্তবাইয়নও করে দেখিয়েছেন। বর্তমান বিশ্বের টাকা লেনদেনের অন্যতম মাধ্যম হলো "পেপ্যাল" এর কথা সবাই জানলেও অনেকেই জানে না পেপ্যাল এর প্রতিষ্ঠাতাদের একজন হলেন ইলন মাস্ক। ১৯৯৮ সালে ইলন মাস্ক, ক্যান হুয়ারি, ম্যাক্স লেভটিন, লিউক নসেক, পিটার থিয়েল এবং ইউ প্যান দ্বারা পেপ্যাল প্রতিষ্ঠিত হইয়।

পেপ্যাল নিয়ে তিনি বলেন, "আমরা যখন কিছু তরুণ পেপ্যাল প্রতিষ্ঠা করি তখন মানুষ আমাদের এই সেবাকে মেনে নিতে পারেনি। পরে আমরা তাদের বিষয়টা বুঝিয়ে বলি, তখন ধীরে ধীরে মানুষ এই সেবা গ্রহণ করতে থাকে। আজ যদি আপনারা পেপ্যাল এর দিকে তাকান তাহলে দেখতে  পাবেন প্রতিষ্ঠানটি কত সুন্দর সেবা দিএ চলছে।''

SpaceX


মহাকাশ নিয়ে ইলন মাস্ক এবং তাঁর রকেট নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান "SpaceX" প্রতিনিয়ত  সফলতার দৃষ্টান্ত তৈরি করেই যাচ্ছে।  
কয়েক বছর আগে একটি প্রেস-কনফারেন্সে তিনি বলেন, "আমি নাসার আশায় বসে থাকব না। মানবজাতির স্বার্থেই আমরা মঙ্গলে বসতি গড়নে পরিকল্পনা থেকে সরে আসতে পারি না"
  • SpaceX প্রতিষ্ঠানটি ২০০৮-০৯ সালে ফ্যালকন-১ তরল জ্বালানি দিয়ে লঞ্চ করার মাধ্যমে পৃথিবীর প্রথম ব্যাক্তিগত সফল মহাকাশা প্রতিষ্ঠান হয়ে উঠে।
  • এছাড়া প্রতিষ্ঠানটি এখন পর্যন্ত কৃত্রিম উপগ্রহ লঞ্চ করেছে। আমাদের Bangabandhu-1 স্যাটেলাইটটিও SpaceX দ্বারা মহাকাশে প্রেরণ করা হয়েছে।
'' আমি চাই তরুণরা 'কল্পনাপ্রবন' হোক, তোমরা কল্পনা প্রবণ হও। আজ থেকে অনেক বছর আগে ফিরে গেলে হয়তো দেখা যাবে, তখন কেউ প্লেন উড়ানোর কথা চিন্তা করলেতাকে হত্যা করা হতো। কিন্তু আজ যদি তোমরা আরো বড় কোনো কিছু কল্পনা করো, তবে তেমন কিছু হবে না।'
ইলন মাস্ক, ক্যালিফোর্নিয়া ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি সমাবর্তন


BigganBhoot_Elon_Musk_Bangla_Elon Musk - এক_বিলিনইয়র_এর_গল্প

সাল ২০১৬, পৃথিবির সেরা ১০০ জন ধনী ব্যাক্তিদের তালিকায় স্থান করে নেন ৪৫ বছর বয়সী এই বিলিনিয়র। ২০১৯ সালে The Forbes 400 তে তাঁর স্থান ছিল ২৩ তম।
ইলন মাস্ক সর্বদাই শত শত বাধা বিপত্তির মাঝে যুদ্ধ করে গিয়েছেন আবার অনেক সময় হাল ছেড়ে পথও পরিবর্তন করেছেন। তাঁর জিবনে কিছু ব্যার্থতাও ছিল কিন্তু তিনি তখন ব্যার্থতা স্বীকার করে সফলতার নতুন পথ  বেছে নিয়েছেন।

আর্টিকেলটি ভালো লাগলে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটিও একবার ঘুরে আসতে পারেন এবং আমাদের আর্টিকেল নিয়ে মতামত কমেন্ট করে অথবা আমাদের মেইল করে জানাতে পারেন। লেখাটি আশা করি শেয়ার করে আমাদের সাইটের পাশে থাকবেন। ধন্যবাদ  😀
Oldest